বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
গাইবান্ধায় দর্জি শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা ও সেলাই সামগ্রী বিতরন স্থানীয় সম্পাদকদের সাথে প্রেসক্লাব গাইবান্ধার মতবিনিময় ক্রেতা সেজে গাজা ব্যবসায়ীকে নিজেই গ্রেফতার করলেন ডিবির ওসি ভূয়া র‌্যাব পরিচয়ে প্রতারনা, যুবক গ্রেফতার রকি হত্যা মামলার প্রধান আসামী কাঞ্চন ও সোহাগ গ্রেফতার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিলেন আতোয়ার রহমান জাফরুল স্মৃতি সংসদ নাইট ফুটবল টুর্নামেন্টে শিরোপা জয়ী টিম মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড বোয়ালীর জনগনের সেবক হিসেবে কাজ করতে চান জাহিদ গাইবান্ধা পানি নিস্কাশন ড্রেন ও স্লাব নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন-হুইপ মা হারালেন সাংবাদিক সম্রাট!

‘ও’ পজেটিভের বদলে ‘এবি’ প্রয়োগে প্রসূতির মৃত্যু

জিহাদ হক্কানী, গাইবান্ধা / ২২০ বার পঠিত
সময় : বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১, ২:২৪ পূর্বাহ্ণ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে ভুল চিকিৎসা ও ভিন্ন গ্রুপের রক্ত প্রয়োগে এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

হাসপাতালে সিজারিয়ান অস্ত্রপচারের মাধ্যমে ওই প্রসূতি মা মঙ্গলবার দুপুরের দিকে একটি ফুটফুটে কণ্যাশিশুর জন্ম দেয়। এরপর প্রচুর রক্তক্ষরণে সন্ধ্যার দিকে হাসপাতালে চিকিৎধীন অবস্থায় প্রসূতির মৃত্যু হলে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ তোলেন স্বজনরা।

ওই প্রসূতি মায়ের নাম মিম আকতার (২৪)। তিনি গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার কামারপাড়া ইউনিয়নের কামারপাড়া গ্রামের শাহীন মিয়ার স্ত্রী।

ছবি: বিডি পোস্ট

রোগীর স্বজনদের অভিযোগ, গতকাল সোমবার সকালে প্রসূতি মিম আকতারের প্রসববেদনা উঠলে তড়িঘড়ি করে বেলা ১২টার দিকে তাকে নেয়া হয় জেলা হাসপাতালে। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নির্দেশে দায়িত্বরত গাইনি বিভাগের চিকিৎক তাহেরা আকতার মনি রোগীর প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন করেন। এরপর এদিন ঠিকঠাক চিকিৎসা সেবায় সুস্থ্য ছিলেন প্রসূতি ওই মা। সেদিন স্বজনদের জানিয়ে দেয়া হয় পরদিন অর্থ্যাৎ মঙ্গলবার দুপুরে প্রসূতির সিজারিয়ান অস্ত্রপচার করা হবে।’

এদিকে, মঙ্গলবার সকালে হাসপাতালের নিজস্ব প্যাথলজিতে ওই প্রসূতির রক্তের গ্রুপ ক্রসমেসিং (টেস্ট) করে ‘এবি পজেটিভ’ গ্রুপ নিশ্চিত হয়ে স্বজনদের রক্ত সংগ্রহ করতে বলেন দায়িত্বরত চিকিৎক তাহেরা আকতার মনি। পরামর্শ মোতাবেক স্বজনরা ওই গ্রুপের রক্ত সংগ্রহ করেন।’

প্রসূতির ভাই গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান জানান, ‘হাসপাতালের দায়িত্বরত গাইনি চিকিৎসক তাহেরা আকতার মনির পরামর্শে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে প্রথমে এক ব্যাগ ‘এবি পজেটিভ’ রক্ত সংগ্রহের পর তার বোনের শরীরে দেয়া হয়। এরপর সিজারিয়ান অস্ত্রপচারের মাধ্যমে দুপুরে তার বোনের কোলজুড়ে জন্ম নেয় একটি ফুটফুটে মেয়ে নবজাতক।’

তিনি অভিযোগ করে জানান, ‘সিজারের পর বিকেল ৩টার দিকে চিকিৎসক তাহেরা আকতার মনি পূর্ণরায় আরও তিন ব্যাগ ‘এবি পজেটিভ’ রক্ত সংগ্রহ করতে বলেন। কিন্তু রক্ত হাতের নাগালে না থাকায় তা সংগ্রহ করতে প্রায় ঘণ্টা দুয়েক সময় লেগে যায়। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে রক্ত সংগ্রহ করে হাসপাতালে এসে তিনি জানতে পারেন তার বোনকে আবারও অপারেশন থিয়েটারে নেয়া হয়েছে। এরপর পূর্ণরায় তার বোনের শরীরে তিন ব্যাগ রক্ত পুশ করার কথা জানান চিকিৎসক। সন্ধ্যার দিকে তিনি হঠাৎ জানতে পারেন তার বোন আর নেই।’

আবু সুফিয়ান বলেন, ‘ভুল রক্ত দিছে ডাক্তার। এ জন্য আমার বোনটা আজ চলে গেল। আমি এর বিচার চাই!’

প্রসূতির চাচাতো ভাই আশাসুদ ইসলাম শুভ অভিযোগ করে বলেন, ‘কয়েক মাস আগে শহরের এসকেএস হাসপাতালে আমার বোনের রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করি। তখন রির্পোটে রক্তের গ্রুপ দেখায় ‘ও পজেটিভ’। কিন্তু আজ ডাক্তার আমাদের ‘এবি পজেটিভ’ রক্ত আনতে বলে। আমরা তো ওটা (পূর্বের রক্তের গ্রুপ) খেয়াল করিনি তখন। ভুল রক্ত দেয়ার কারণে আজ বোনকে হারাতে হল। আমরা ডাক্তারের শাস্তি চাই।’

ছবি: বিডি পোস্ট

এদিকে, প্রসূতির মৃত্যুর পর ভুল চিকিৎসা ও ভিন্ন রক্ত দানের কারণে মৃত্যুর অভিযোগ তোলেন স্বজনরা। পরে তারা উত্তেজিত হয়ে কর্তৃপক্ষ ও অভিযুক্ত চিকিৎসকের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা অভিযুক্ত চিকিৎসক তাহেরা আকতার মনি বলেন, ‘রোগীর শরীরে সঠিক রক্তই পুশ করা হয়। সিজারের পর রোগীর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাকে বাঁচানো যায়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘রোগীর প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে হাসপাতালের প্যাথলজিতে তার রক্তের গ্রুপ ‘এবি পজেটিভ’ নিশ্চিত হওয়া গেছে। পূর্বে রোগীর ‘ও পজেটিভ’ রক্তের গ্রুপ ছিল কী না তা আমার জানা নেই।’

এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘এ ঘটনায় থানায় এখনো কোন লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

প্রসূতির মৃত্যুর পর খবর পেয়ে হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়। স্বজনরা উত্তেজিত হলে তাদের শান্ত করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা হয়। পরে স্বজনরা প্রসূতির মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেছে বলেও জানান ওসি।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসুবকে আমরা

এক ক্লিকে বিভাগের খবর