মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৬:৫০ অপরাহ্ন

সাদুল্লাপুরে অধিগ্রহণকৃত জমির ন্যায্য মূল্য নির্ধারণের দাবিতে মানববন্ধন

আমিনুর রহমান, গাইবান্ধা / ১৪১ বার পঠিত
সময় : শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১, ৮:০৩ অপরাহ্ণ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাটে অধিগ্রহণকৃত জমির ন্যায্য মূল্য নির্ধারণের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন জমির মালিকরা।

শুক্রবার সাদুল্লাপুর-ধাপেরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কের আখ সেন্টারের সামনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে শতশত নারী-পুরুষ মানববন্ধনে অংশ নেয়।

জানা গেছে, ৮এর (৩)(ক) নং উপধারা মোতাবেক সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের পালানপাড়া মৌজা এলাকার বাণিজ্যিক জমির মূল্য ধরা হয়েছে প্রতি একর ২৩ লক্ষ ৯৪ হাজার ৫৪৬ টাকা। এছাড়া প্রতি শতাংশ জমির মূল্য প্রায় ২৩ হাজার ৯৪৫ টাকা এবং বাড়ির জমির মূল্য একর প্রতি ২৭ লক্ষ ৩১ হাজার ৪২৯ টাকা ও প্রতি শতাংশ জমির মূল্য ২৭ হাজার ৩১৪ টাকা।

অপরদিকে, একই ইউনিয়নের হাসানপাড়া মৌজার বাণিজ্যিক জমির মূল্য ধরা হয়েছে প্রতি একর ২ কোটি টাকা। আর প্রতি শতাংশ জমির মূল্য প্রায় ২০ লক্ষ টাকা এবং বাড়ির জমির মূল্য একর প্রতি ২১ লক্ষ ৫৭ হাজার ১৩৭ টাকা ও প্রতি শতাংশ জমির মূল্য ২১ হাজার ৫৭১ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। অর্থাৎ পালানপাড়া মৌজার প্রতি শতাংশ জমির তিনগুণ ধরে মূল্য ৭১ হাজার টাকা আর হাসানপাড়া মৌজার প্রতি শতাংশ জমির মূল্য তিনগুণ ধরে ৬০ লক্ষ টাকা নির্ধারণ করেছে কর্তৃপক্ষ। যা ৮ ধারার নোটিশ মোতাবেক হাসানপাড়া মৌজার জমির মূল্যের চেয়ে পালানপাড়া মৌজার জমির মূল্য অস্বাভাবিক কম ধরা হয়েছে। অথচ সরকারিভাবে জমির বিক্রির মূল্য হাসানপাড়া মৌজার জমির চেয়ে পালানপাড়া মৌজার জমির মূল্য দ্বি গুণেরও বেশি। তাই পালানপাড়া মৌজার জমির অস্বাভাবিক মূল্য স্বাভাবিক করার লক্ষ্যে পালানপাড়াবাসী এই মানববন্ধনের আয়োজন করেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, ধাপেরহাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল কবির মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক লাবলু প্রামাণিক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য শরিফুল ইসলাম প্রামানিক, জমির মালিক তৌহিদুল ইসলাম বিপ্লব, মিজানুর রহমান প্রামাণিক, অজিত সাহা, স্বপন সাহা, সারোয়ার, নজরুল ইসলাম, আশিকুর রহমান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, কিছু অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীর ও স্থানীয় দালাল চক্র অসৎ উদ্দেশ্য চরিতার্থের জন্য জমির প্রকৃত মূল্য মালিকদের না দিয়ে মনগড়া মূল্য নির্ধারণ করে অবকাঠামতে অধিক টাকা প্রদান করে। তারা জমি মালিকদেরকে বঞ্চিত করেছে। এটা মেনে নেয়া যায় না।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


এ জাতীয় আরও খবর

ফেসুবকে আমরা

এক ক্লিকে বিভাগের খবর